Sunday, August 7বাংলারবার্তা২১-banglarbarta21
Shadow

অপরাধ জগত

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে হিসাবরক্ষক ফোরকানের একের পর এক অপরাধ দুর্নিতি

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে হিসাবরক্ষক ফোরকানের একের পর এক অপরাধ দুর্নিতি

অনলাইন নিউজ, অপরাধ জগত
চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে হিসাবরক্ষক পদে চাকরি করতেন মোহাম্মদ ফোরকান। তাঁর মূল পদ চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর। কিন্তু ১০ বছর ধরে তিনি প্রেষণে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে হিসাবরক্ষক পদে চাকরি করছেন। প্রেষণে বাগিয়ে নেওয়া পদে বসে তিনি করে গেছেন একের পর এক অপকর্ম। তাঁর বিরুদ্ধে টেন্ডার সিন্ডিকেট, দুর্নীতিসহ ৩৭টি অভিযোগের দুটি তদন্ত কমিটির ১৫ দিনের তদন্ত তিন বছরেও শেষ হয়নি। ফোরকানের হাত এতই লম্বা যে, তাঁকে ২০১৭ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম থেকে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ হাসপাতালে বদলি করা হলেও ১৩ দিনের মাথায় সেই আদেশ স্থগিত করিয়ে ফেলেন। চট্টগ্রামের এক প্রভাবশালী চিকিৎসক নেতার প্রশ্রয়ে তিনি ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলেন। সর্বশেষ ভুয়া স্মারক নম্বর বসিয়ে জেনারেল হাসপাতালের ৫ কোটি ৩৭ লাখ টাকার একটি বিল ছাড়াতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়েন মোহাম্মদ ফোরকান। এদিকে চ
আইনের অপব্যবহার করা ইনস্পেক্টর সালামত এখনো বহাল তবিয়তে উর্ধ্বতনদের নাকের ডগায় এসব কি?

আইনের অপব্যবহার করা ইনস্পেক্টর সালামত এখনো বহাল তবিয়তে উর্ধ্বতনদের নাকের ডগায় এসব কি?

অনলাইন নিউজ, অপরাধ জগত, সমগ্র বাংলাদেশ
চট্টগ্রাম নিরাপত্তা জেনারেল শাখার ইনস্পেক্টর সালামতের বিরুদ্ধে গত কয়েকদিনে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় ও অনলিইনে খবর প্রকাশিত হওয়ার পরও উর্ধ্বতনদের কোন টনক নড়ছেনা। খবর প্রকাশিত হওয়ার আগে ও পরে রেলওয়ে চীফ কমান্ডেন্ট ও জিএমকে ফোনে না পাওয়ায় হোয়াসআপে তাদের জানানো হলেও এনিয়ে ইনস্পেক্টর সালামতের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। শুধু কমান্ডেন্ট তাকে একটি কারন দর্শৃানো নোটিশ দিলেও তা যে কোন কারনে টেবিলের নীছে ছাপা পড়ে গেছে। তার বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ তার মধ্যে তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করে বেশ কয়েকজন নিরাপত্তা কর্মীকে (জেনারেল শাখার) ডিউটি ছাড়া স্বল্প টাকার বিনিময়ে তাদের বেতন পাইয়ে দেন। আরো পড়ুন আরএরবি ইনস্পেক্টর সালামতের দুর্ণিতি যেন কমছেইনা এত ক্ষমতার জোর কোথায়? এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সময় চট্টগ্রামের বেশকিছু রিক্সার গেরেজে, ষ্টিলের আলমারীর দোকান, বিভিন্ন ডকইয়ার্ডে, অভিযান পরিচালনা করেন।তার সঙ্গি
বাংলাদেশিদের রেকর্ড পরিমাণ অর্থ জমা আছে সুইস ব্যাংকে

বাংলাদেশিদের রেকর্ড পরিমাণ অর্থ জমা আছে সুইস ব্যাংকে

অনলাইন নিউজ, অনুসন্ধানী, অপরাধ জগত, বিশ্ব সংবাদ
বিশ্বের সবছেড়ে ধনাঢ্য ব্যক্তিদের অর্থ জমা হওয়া সুইজারল্যান্ডের সুইস ব্যাংক সহ সেখানের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশিদের রাখা অর্থ রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে। গত এক বছরে বাংলাদেশিরা প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ অর্থ সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে জমা করেছেন। সব মিলিয়ে সুইস ব্যাংকগুলোতে এখন বাংলাদেশিদের টাকার পরিমাণ আট হাজার ৩৪৫ কোটি, যা এযাবৎকালের সর্বোচ্চ। বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচার হওয়া অর্থ ফেরত আনার আলোচনার মধ্যেই গতকাল বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানাল সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি)। সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড-২০২২’ শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। এদিকে এসএনবির প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ২০২১ সাল শেষে দেশটির ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের জমা অর্থের পরিমাণ আগের বছরের ৫৬ কোটি ৩০ লাখ সুইস ফ্রাঁ থেকে বেড়ে ৮৭ কোটি
আরএরবি ইনস্পেক্টর সালামতের দুর্ণিতি যেন কমছেইনা এত ক্ষমতার জোর কোথায়?

আরএরবি ইনস্পেক্টর সালামতের দুর্ণিতি যেন কমছেইনা এত ক্ষমতার জোর কোথায়?

অনলাইন নিউজ, অপরাধ জগত
দুর্নিতি এবং ক্ষমতা এখন যেন সালামীতে পরিনত হয়েছে। চট্টগ্রাম রেলওয়ের নিরাপত্তা বাহিনির (জেনারেল) ইনস্পেক্টর সালামতের দুর্নিতি যেন কমছেইনা। গত সপ্তাহে বিভিন্ন পত্রিকায় তার দুর্নিতির বিরুদ্ধে খবর প্রকাশিত হয়। ঐ খবরটি ছাপা হওয়ার পর চট্টগ্রাম রেলওয়ের চীপ কমান্ডেন্টকে বারবার ফোন দিলেও তাকে পাওয়া যায়নি এমনকি রিপোটার কর্তৃক তাকে একটি মেসেজও দেওয়া হয়েছিল তারও কোন উত্তর তিনি দেননি। এছাড়া বিভিন্ন পত্রিকায় খরব ছাপানোর পর কমান্ডেন্ট অফিসার ইনস্পেক্টর সালামতকে একটি কারন দর্শানো নোটিশও প্রদান করেন কিন্তু তার কোন কার্যকারিতা এই পর্যন্ত দেখা যায়নি। বিশ্বস্থ সূত্রে জানা যায় কমান্ডেন্ট অফিসার তার বিরুদ্ধে কারন দর্শানো নোটিশ জারী করার পর হয়তো কোন লেনদেন করার কারনে সেই কারন দর্শানো নোটিশ চাপায় পড়ে, যায় কারন এই পর্যন্ত নোটিশের কোন অগ্রগতি দেখা যায়নি। এহেন পরিস্থিতিতে ভূক্তভোগীরা হতাশায় ভুগছেন। এছাড়া গত ২২শে